,


শিরোনাম:
«» রাজবাড়ীতে ব্যতিক্রমী আয়োজন করতে যাচ্ছে অনলাইন প্লাটফর্ম “রাজবাড়ী সার্কেল” «» পাংশাবাসীকে দূর্গা পূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জেলা পরিষদ সদস্য উত্তম কুমার কুন্ডু «» পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে পাংশাবাসীকে শারদীয় শুভেচ্ছা জানিয়েছে দিপক কুণ্ডু «» কালুখালীতে ২০ পাউন্ডের কেক কেটে ইউপি সদস্য জামির হোসেনের জন্মদিন উদযাপন «» পাংশা প্রেসক্লাবের সদস্যদের বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করতে হবে-দৈনিক সকালের কণ্ঠ «» পাংশার অবৈধ ক্লিনিক বন্ধ করতে হবে-এমপি জিল্লুল হাকিম   «» পাংশায় ৯৮টি মন্দিরে হবে দুর্গাপূজা শিল্পীদের নিপুণ আঁচড়ে প্রস্তুত হচ্ছে প্রতিমা-দৈনিক সকালের কণ্ঠ «» পাংশায় ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত-দৈনিক সকালের কণ্ঠ «» পাংশায় মনির কসমেটিক্সের গোডাউনে অভিযান, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা «» পাংশার সকল ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

পাংশায় মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে হামলা আহত ১০

নিজস্ব প্রতিবেদক।


মাইকে ঘোষণা দিয়ে প্রতিপক্ষের লোকজনের ওপর হামলা করার অভিযোগ উঠেছে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সুবাহানের সমর্থকদের বিরুদ্ধে। অভিযোগ করেছেন বর্তমান চেয়ারম্যান আজমল আল বাহাড়ের সমর্থকরা। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার সরিষা ইউনিয়নের বহলাডাঙ্গা বাজার এলাকায়।

গত ২৮  জুলাই (বুধবার) মাগরিবের নামাজের আগে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় বাজারের ১১ টি দোকানের বিদ্যুতের মিটার ভাঙচুর করা হয়। এলাকাবাসী বলছেন দলীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিনিয়তই  সরিষা ইউনিয়নে এ ধরনের ঘটনা ঘটে। আমরা সব সময় আতঙ্কে থাকি। আমরা ইউনিয়নের সাধারন জনগন এর থেকে পরিত্রাণ চাই।

এ ঘটনায় একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা আহত হয়েছেন। আহত বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম বলেন, কে বা কাহারা ডাক ছেরে মারামারি খবর বলতে থাকে। এসময় আমি ঘটনাস্থলে যাই। কেউ একজন লাঠি দিয়ে আমার পিছনে আঘাত করে। এসময় আমি পড়ে গেলে আমার হাতে রামদা দিয়ে আঘাত করলে আমার হাতটি ভেঙে যায়। আমি কাউকে চিনতে পারিনি। পরবর্তীতে আমাকে যারা আঘাত করেছে তাদের নাম গুলো প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছে থেকে জানতে পেরেছি।

এ বিষয়ে সরেজমিনে গিয়ে আহত হেলাল উদ্দিন মোল্লার সাথে কথা হলে তিনি জানান, ঐ দিন সন্ধ্যার আগে আমি বহলাডাঙ্গা হাইস্কুল মাঠে বসে ছিলাম হঠাৎ দেখি শামীম, সুজন মন্ডল, মামুন, রানা ও সুমন সহ আরো কয়েকজন মিলে আক্তার হোসেন এবং আজাদ হাই বিশ্বাসকে মারধর করছে। এসময় আমি তাদেরকে ঠেকাতে গেলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে মারধর করে। এক পর্যায়ে লাঠি দিয়ে আমার পায়ে আঘাত করলে আমার পা ভেঙে যায়। সেই খবর শুনে আমার বাবা-মা আমার স্ত্রী ও আমার ভাই আমাকে বাঁচাতে আসলে তাদের কেউ রেহাই দেয়নি। আমার ভাই আশরাফের মাথায় ও আমার স্ত্রী মমতাজ বেগমের পায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। অন্যদিকে আমার চাচাতো ভাই রুবেলকেও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেয় তারা। আমার বাবা ও আরেক চাচাতো ভাই আজহার সহ আমরা মোট ৭/৮ জন আহত হই পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আমাদেরকে হাসপাতালে পাঠায়। আরেক প্রত্যক্ষদর্শী আহত রুবেলের বাবা বলেন, মারামারি যখন শুরু হয় তখন হঠাৎ কারিগর পাড়া জামে মসজিদ ও বাজার মসজিদ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয় বহলাডাঙ্গা বাজারে মারামারি লেগেছে তোমরা সবাই লাঠিসোটা নিয়ে আসো। তখনই আব্দুস সোবাহানের লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে এসে অতর্কিতভাবে হামলা চালায়। তবে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দেওয়ার কথা অশ্বীকার করেছে কারিগরপাড়া জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস বিশ্বাস।

পাংশা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান জানান, এ ঘটনায় উভয় পক্ষ ১০ জনকে আসামি করে মামলা করেছে আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ