,


শিরোনাম:
«» রাজবাড়ীতে ব্যতিক্রমী আয়োজন করতে যাচ্ছে অনলাইন প্লাটফর্ম “রাজবাড়ী সার্কেল” «» পাংশাবাসীকে দূর্গা পূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জেলা পরিষদ সদস্য উত্তম কুমার কুন্ডু «» পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে পাংশাবাসীকে শারদীয় শুভেচ্ছা জানিয়েছে দিপক কুণ্ডু «» কালুখালীতে ২০ পাউন্ডের কেক কেটে ইউপি সদস্য জামির হোসেনের জন্মদিন উদযাপন «» পাংশা প্রেসক্লাবের সদস্যদের বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করতে হবে-দৈনিক সকালের কণ্ঠ «» পাংশার অবৈধ ক্লিনিক বন্ধ করতে হবে-এমপি জিল্লুল হাকিম   «» পাংশায় ৯৮টি মন্দিরে হবে দুর্গাপূজা শিল্পীদের নিপুণ আঁচড়ে প্রস্তুত হচ্ছে প্রতিমা-দৈনিক সকালের কণ্ঠ «» পাংশায় ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত-দৈনিক সকালের কণ্ঠ «» পাংশায় মনির কসমেটিক্সের গোডাউনে অভিযান, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা «» পাংশার সকল ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

পাংশা হাসপাতালের একমাত্র সড়কে রোগী ও স্বজনদের ভোগান্তি-দৈনিক সকালের কণ্ঠ

পাংশা হাসপাতালের একমাত্র সড়কে খানাখন্দ রোগী ও স্বজনদের ভোগান্তি-দৈনিক সকালের কণ্ঠ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রবেশের একমাত্র সড়ক খানাখন্দে ভরা। চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়লেও সংষ্কারের উদ্যোগ নেই। হাসপাতালে সেবা নিতে এসে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় রোগী ও স্বজনদের।

পাংশা শহরে উপজেলা পরিষদের পূর্ব পাশ (চান্দুর মোড়) থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রবেশের একমাত্র সড়ক এটি। সড়কে অসংখ্য ছোট ছোট গর্ত। সেই গর্তে বৃষ্টির পানি জমে রয়েছে। গাড়িতে চড়ার পর থেকে নামার আগ পর্যন্ত ঝাঁকি আর ঝাঁকি।

উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১০ ইউনিয়নের মানুষ এ হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে আসে। এ ছাড়া পাশের কালুখালী ও খোকসা দুটি উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের মানুষও চিকিৎসাসেবা নিতে আসে এখানে। সবাইকেই এই সড়ক দিয়ে হাসপাতালে যেতে হয়।

বুধবার হাসপাতালে গেলে বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা  বেশ কয়েকজন রোগী জানান,  রাস্তায় ঝাঁকিতে তাঁদের জীবন  শেষ। চিকিৎসা নিতে এসে  আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এই রাস্তা দিয়ে অটো বা ভ্যানে  আসার কোনো উপায় নেই। হাসপাতালের একটি মাত্র রাস্তার এই অবস্থা কোনোভাবেই মেনে নেওয়ার মতো নয়।

করোনার টিকা নিতে আসা আসমা বেগম (৪৫) বলেন, ‘অনেক বয়স হয়ে গেছে। মাঝে-মধ্যেই মাজার মধ্যে ব্যথা করে। টিকা নিতে এসে ঝাঁকিতে যেভাবে মাজার ব্যথা শুরু হয়েছে তাতে মনে হয় আর বাঁচব না। জীবনে মনে থাকলে আর এই হাসপাতালে আসব না।’

পাংশা পৌর মেয়র মো. ওয়াজেদ আলী মণ্ডল বলেন, ‘বর্তমানে আমাদের কোনো বাজেট নেই। নতুন করে বাজেট এলে সড়কটি সংস্কারের ব্যবস্থা করা হবে।’

Print Friendly, PDF & Email
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ